1. admin@naldangabatra.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন

ডাসকো ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় আনোয়ারা বেগম এখন স্বাবলম্বাী।

নলডাঙ্গা বার্তা ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৯ জুন, ২০২৩
নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার সাহাগোলা ইউনিয়নের মাগুরাপাড়া গ্রাম একটি পিছিয়ে পড়া গ্রাম। সব ধরনের সুযোগ সুবিধা থেকে বাদপড়া গ্রাম মাগুরাপাড়া। সে গ্রামে বসবাস করছেন আনোয়ারা বেগম।
২৩৮ বার পঠিত

ডাসকো ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় আনোয়ারা বেগম এখন স্বাবলম্বাী।

গোলাম রাব্বানী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি:

নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার সাহাগোলা ইউনিয়নের মাগুরাপাড়া গ্রাম একটি পিছিয়ে পড়া গ্রাম। সব ধরনের সুযোগ সুবিধা থেকে বাদপড়া গ্রাম মাগুরাপাড়া। সে গ্রামে বসবাস করছেন আনোয়ারা বেগম।

বর্তমানে আনোয়ারা বেগমের বয়স ৫২ বছর। তার ১জন ছেলে ও ১জন মেয়ে সন্তান। ছেলে ও মেয়ে দুজনেরই বিয়ে হয়ে আলাদা সংসার করে। মা-বাবার দেখার মতো কেউ নেই। স্বামী পেশায় কৃষি দিন মজুর লেবার হিসেবে কাজ করে সংসার চালিয়ে আসছেন। স্বামী যা আয় করে তা দিয়ে সংসার চালানো আনোয়ারা বেগম এর জন্য খুব কষ্টকর হয়ে যায় এবং মাসের বেশির ভাগ সময় কাটত অনাহারে। আনোয়ারা বেগম এর পারিবারিক দূর অবস্থার কথা চিন্তাভাবনা করে গত ১৩জুন ২০১৯ ইং তারিখ সমতা মহিলা সমিতি মাগুরা, সাহাগোলা, আত্রাই , নওগাঁ। উপকারভোগী হিসাবে কমিউনিটি নির্বাচন করে এবং আনোয়ারা বেগম তার পারিবারিক আয়মূলক পরিকল্পনায় আয় বোধক কাজ হিসাবে বিএমজেড এবং নেট্জ বাংলাদেশের আর্থিক সহায়তায় ডাসকো ফাউন্ডেশন থেকে ৯ হাজার টাকা এবং আনোয়ারা নিজে ৫শত টাকা দিয়ে মোট ৯হাজার ৫শত টাকা দিয়ে ২টি ছাগল ক্রয় করেন।

এই ছাগল দুইটি মাত্র ১ বছর পালন করে বিক্রি করেন ৩০হাজার টাকা দিয়ে। তার লাভের টাকা থেকে বাড়ি মেরামত এবং তার চিকিৎসার কাজে ব্যবহার করেন এবং জমি লিজ নেন। পরবর্তীতে আবারো পরিবেশ প্রকল্প হতে ২৫ নভেম্বর ২১ ইং তারিখে ৪হাজার ৫শত টাকা দিলে তা দিয়ে আবারো ২টি ছাগল এবং মুরগী ক্রয় করেন। এই ২টি ছাগল বর্তমানে ৩টি করে মোট ৬টি বাচ্চ দিয়েছে। আনোয়ারা বেগমের বর্তমান ছাগলের সংখ্যা ৮টি। তার ৮টি ছাগল বর্তমান বাজার মূল্য ৪৫হাজার টাকার হবে বলে আশা করেন। বাড়িতে হাঁস-মুরগীও পালন করেন তিনি। হাঁস-মুরগীর ডিম তারা নিজেরাই খেয়ে পুষ্টির চাহিদা পূরণ করেন। এছাড়াও তার লিজ নেওযা মাটি থেকে বছরে প্রায় ৫০ মোন করে ধান পান তিনি। এই ধান দিয়ে সে পুরো বছর খেতে পারেন। এছাড়াও তার জমিতে কপি, পুইশাখ, লাউ, সিম চাষ করে সংসারে চাহিদা মিটিয়ে বাজারে বিক্রয় করে থাকে।

আনোয়ারা বেগমের কাছে এখন সব সময় টাকা থাকে। সে নিজে থেকে নিজের পছন্দ অনুয়ায়ী যেকোন জিনিসপত্র ক্রয় করতে পারেন। টাকার জন্য তার স্বামীর কাছে হাত পাততে হয়না। সে নিজেই এখন সাবলম্বী। তার দেখে গ্রামের অন্য সব পরিবার গুলো ছাগল পালন করতে শুরু করেন। আনোয়ারা বেগমের ভবিষৎ পরিকল্পনা হলো সে একটি গরুর খামার করবেন এবং এই খামার থেকে আয় করে তার বাড়ি মেরামত করবেন বলে আশা করবেন।

Facebook Comments Box

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ ©  নলডাঙ্গা বার্তা

 
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park