1. admin@naldangabatra.com : admin :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৭:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
অবহেলিত চলনবিল আজ উন্নয়নের রোল মডেল- পলক। দ্রুত বাড়ছে তিস্তার পানি নদীপাড়ে আতঙ্ক বিরাজ। মান্দার চৌবাড়িয়া হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা। আব্দুলপুর বাজারে  আগুন, আটটি দোকানঘর ও মালামাল পুড়ে ছাই লালপুরে সাবেক সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ মমতাজ উদ্দিন স্মরণে স্মরণসভা অনুষ্ঠিত বড়াইগ্রামে ইউপি কার্যালয়ে ঢুকে ভাংচুর ও চেয়ারম্যানকে মারধর; প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ। নড়াইল সদর উপজেলার নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ। বাগমারায় পূর্ব শত্রুতার জেরধরে ফলন্ত আম গাছ কেটে ফেলেছে দুস্কৃতকারীরা। ঈদে ঘরমুখো মানুষের হয়রানী ও টিকেট কালোবাজারী বন্ধে পুলিশ ও র‌্যাবের সাব-কন্ট্রোল রুম চালু। নলডাঙ্গায় দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীর চার বছরের জেল, ৪৩ লাখ টাকা বাজেয়াপ্ত

নলডাঙ্গা বার্তা ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৯ জুন, ২০২৩
রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীর কার্যালয়ের উচ্চমান সহকারী হাসনা বানু লিপিকে চার বছর সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) মামলা করেছিল। ওই মামলায় সোমবার (১৯ জুন) দুপুরে রংপুরের স্পেশাল জজ হায়দার আলী এ রায় দেন।
১৭৩ বার পঠিত

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীর চার বছরের জেল, ৪৩ লাখ টাকা বাজেয়াপ্ত

 

রিয়াজুল হক সাগর, রংপুর জেলা প্রতিনিধি:

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীর কার্যালয়ের উচ্চমান সহকারী হাসনা বানু লিপিকে চার বছর সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) মামলা করেছিল। ওই মামলায় সোমবার (১৯ জুন) দুপুরে রংপুরের স্পেশাল জজ হায়দার আলী এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার সময় আসামি হাসনা বানু লিপি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে পুলিশি পাহারায় আদালতের হাজতখানায় নেওয়া হয়। সেখানে সাংবাদিকরা ছবি নেওয়ার সময় ক্যামেরা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন আসামি। পুলিশ তাকে নিবৃত করে।এদিকে মামলা সূত্রে জানা গেছে, হাসনা বানু লিপি পানি উন্নয়ন বোর্ড রংপুরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর কার্যালয়ের উচ্চমান সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি চাকরিকালে বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদ অর্জন করেন। বিষয়টি নিয়ে দুদক অনুসন্ধান করে ঘটনার সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে ২০১৬ সালে দুদক আইনে মামলা করে।

মামলার বাদী ছিলেন দুদকের রংপুর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক জাকারিয়া। তদন্ত শেষে আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দেয় দুদক। মামলায় সাত সাক্ষীর সাক্ষ্য ও জেরা শেষে বিচারক আসামিকে দোষী সাব্যস্ত করে চার বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ৪৩ লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেন। সেই সঙ্গে আত্মসাৎ করা ৪৩ লাখ টাকা রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করার আদেশ দেন। আগামী ২ মাসের মধ্যে ওই টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিতে বলা হয়।

দুদক আইনজীবী হারুনুর রশীদ জানান, এ রায়ের মাধ্যমে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অপরদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী আব্দুল হক প্রামাণিক বলেন, তারা ন্যায়বিচার পাননি। রায়ের আদেশ কপি হাতে পাওয়ার পর তা পর্যালোচনা করা হবে। ন্যায়বিচার পেতে আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করব।

Facebook Comments Box

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ ©  নলডাঙ্গা বার্তা

 
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park