1. admin@naldangabatra.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

বাগমারায় অগ্নিকান্ডে কয়েকটি দোকান পুড়ে ছাই,ও অল্পের জন্য রক্ষা পেলো মাদ্রাসার ছাত্র, ছাত্রী।

নলডাঙ্গা বার্তা ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৬ জুলাই, ২০২৩
রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার হামিরকুৎসা ইউনিয়নের শ্রীপতিপাড়া গ্রামের ফুলতলি বাজারের শ্রীপতিপাড়া হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা এবং মাদ্রাসা সংলগ্ন মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এসময় মাদ্রাসার একটি কক্ষে ঘুমিয়ে থাকা (১২)জন শিক্ষার্থী অল্পের জন্য অগ্নিকাণ্ডের হাত থেকে রক্ষা পায়।
১৫০ বার পঠিত

বাগমারায় অগ্নিকান্ডে কয়েকটি দোকান পুড়ে ছাই,ও অল্পের জন্য রক্ষা পেলো মাদ্রাসার ছাত্র, ছাত্রী।

মো: জাহাঙ্গীর আলম, স্টাফ রিপোর্টারঃ

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার হামিরকুৎসা ইউনিয়নের শ্রীপতিপাড়া গ্রামের ফুলতলি বাজারের শ্রীপতিপাড়া হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা এবং মাদ্রাসা সংলগ্ন মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এসময় মাদ্রাসার একটি কক্ষে ঘুমিয়ে থাকা (১২)জন শিক্ষার্থী অল্পের জন্য অগ্নিকাণ্ডের হাত থেকে রক্ষা পায়।

মঙ্গলবার (২৫জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঘটে যাওয়া অগ্নিকাণ্ডে তিনটি দোকানের মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে মাদ্রাসার ছাত্ররা রাতের খাবারের পর একটি কক্ষে ঘুমিয়ে যায়। এদিকে ওই মাদ্রাসা সংলগ্ন মার্কেটের ব্যবসায়ীরাও অন্যান্য সময়ের মতো রাতে দোকান বন্ধ করে নিজ নিজ বাড়িতে চলে যায়। রাত সাড়ে ১২টার দিকে স্থানীয় বাসিন্দা সুইট ওই মার্কেটে আগুন জ্বলতে দেখে চিৎকার আরম্ভ করেন। তার চিৎকার শুনে স্থানীয় নারী পুরুষরা ছুটে এসে যে যার মত করে পানি সংগ্রহ করে আগুন নেভানোর চেষ্টা চালায়।
একপর্যায়ে স্থানীয়রা মাদ্রাসার একটি কক্ষেও আগুন লাগা দেখতে পেয়ে জানালায় স্বজোরে আঘাত করে শিক্ষার্থীদের জাগিয়ে তোলে। ইতিমধ্যেই ওই কক্ষের ভেতর শিক্ষার্থীদের পোষাক ও আসবাবপত্রে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। মাদ্রাসার সেক্রেটারি সাখাওয়াত হোসেন জানান, অল্পের জন্য মাদ্রাসার ছাত্ররা প্রাণে বেঁচে যায়। স্থানীয়রা টের না পেলে বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যেতো।

ওই মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন, আগুনে শিক্ষার্থীদের পোষাকাদিসহ অন্যান্য মালামাল পুড়ে গেছে।নওই মার্কেটের সামি টেলিকম, রানা ইলেকট্রনিক্স এন্ড কম্পিউটার, একটি টেইলার্স এবং স্থানীয় আ’লীগের একটি কার্যালয়েও আগুন লাগে। আগুনে সামি টেলিকম এর বেশি মালামাল পুড়ে ভস্মিভূত হয়েছে। কম্পিউটার, প্রিন্টারসহ অন্যান্য মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী সোহেল রানা জানান, তার দোকানের প্রায় তিন লাখ টাকার মালামাল পুড়ে যায়। আরেক ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী তোফাজ্জল হোসেন বলেন,দোকানের কম্পিউটারসহ প্রায় দুই লাখ টাকার মালামাল পুড়ে গেছে। এছাড়াও ছামাউল হোসেন টুলটু নামেক ব্যবসায়ীর দোকান পুড়ে গেছে এবং স্থানীয় আ’লীগের একটি দলীয় কার্যালয়েও আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুস সাত্তার মন্টু জানান, আগুনে মাদ্রাসার ছাত্ররা অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে। তবে দুইজন ব্যবসায়ীও নিঃস্ব হয়ে গেলো। যোগীপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক আব্দুস সালাম জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। সম্ভবত বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে।

Facebook Comments Box

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ ©  নলডাঙ্গা বার্তা

 
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park