1. admin@naldangabatra.com : admin :
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
চাটমোহর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম আর নেই! বড়াইগ্রামে কৃষি প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন। পাবনায় সড়ক দুর্ঘটনায় কুত্তা গাড়ির হেলপার নিহত! পাবিপ্রবিতে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে  কর্মকর্তাদের ধস্তাধস্তি। গাইবান্ধায় বিস্ময়কর ৪০ যন্ত্রের আবিষ্কারক মানবিকের ছাত্র শাহীন। লালপুরে দুই ব্যবসায়ীকে ১১ হাজার টাকা জরিমানা। বড়াইগ্রামে সরকারি খরচে আইনি সেবা বিষয়ক সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত আটঘরিয়া পৌরসভার পক্ষ থেকে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য গালিবকে নাগরিক সংর্বধনা। সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে নলডাঙ্গায় ৪ যুবক আটক পাবনায় ট্রলি-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১ জন।

৫ বছরে রাঙ্গার অর্থ বেড়েছে ৬ গুণ।

নলডাঙ্গা বার্তা ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২৩
জাতীয় পার্টির বহিস্কৃত মহাসচিব ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গার নগদ অর্থের পরিমান গত ৫ বছরে বেড়েছে ৬ গুণের বেশি। সে সাথে জমিসহ স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণও বেড়েছে তাঁর। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেয়া হলফনামায় এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
৯১ বার পঠিত

৫ বছরে রাঙ্গার অর্থ বেড়েছে ৬ গুণ।

 

 

রিয়াজুল হক সাগর, রংপুর প্রতিনিধি:

 

 

 

 

জাতীয় পার্টির বহিস্কৃত মহাসচিব ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গার নগদ অর্থের পরিমান গত ৫ বছরে বেড়েছে ৬ গুণের বেশি। সে সাথে জমিসহ স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণও বেড়েছে তাঁর। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেয়া হলফনামায় এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

 

 

জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুর-১ আসন থেকে মসিউর রহমান রাঙ্গা নির্বাচিত হয়েছিলেন। একই আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিনি। নির্বাচনী মনোনয়নপত্রে প্রদত্ত হলফনামার তথ্য মতে ২০১৮ সালে তার নগদ অর্থ ছিল ২৭ লাখ ৮ হাজার ৫৪৬ টাকা। গত ৫ বছরে তা বেড়ে ২০২৩ সালে দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ২৪ লাখ ৬ হাজার ৬২৮ টাকায়। এ ছাড়া ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ৫ বছর আগে জমা না থাকলেও এবার জমা রয়েছে ১ কোটি ৬৯ লাখ ৫৯ হাজার ৬৯৩ টাকা। ২০১৮ সালের হলফ নামায় সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ ছিল ৮৯ লাখ ৫৬ হাজার ৯৩৪ টাকা।

 

এবারে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ দেখানো হয়েছে ২ কোটি ১ লাখ ৪ হাজার ২১৫ টাকা। গত ৫ বছরে বেড়েছে জমিসহ স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণও। ২০১৮ সালের হলফনামায় জমির পরিমান ১২ একর ৩৩ শতক দেখানো হয়েছিল। এবার তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬ একর ৫৪ শতকে। আর পাঁচ বছর আগে কৃষি, অকৃষি জমি, আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন, বাগান ও খামারের মূল্য ও আয় ছিল ৩ কোটি ৬৪ লাখ ২০ হাজার ২৭৫ টাকা। এবারে সে আয় বেড়ে হয়েছে ৪ কোটি ৪৭ লাখ ৪৯ হাজার ৬৩৬ টাকা। ২০১৮ সালে ব্যাংক ঋণ দেখানো হয়েছিল ৯৩ লাখ ৫৩ হাজার ৪১৫ টাকা। এবারের হলফনামায় ব্যাংক ঋণ দেখানো হয়েছে ১ কোটি ৭৬ লাখ ৩২ হাজার ৭৭৭ টাকা। আয়ের উৎস হিসেবে দেখানো হয়েছে- কৃষিখাত, বাড়ি-দোকান ভাড়া, ব্যবসা, চাকুরী শেয়ার ও সঞ্চয়পত্র।

Facebook Comments Box

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ ©  নলডাঙ্গা বার্তা

 
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park